MUKTOHASI

বোরকাওয়ালি মিষ্টি বউ (পর্ব -৫) শেষ পর্ব



ফজরের নামাজ পড়া হয়। বাইরের খোলা হাওয়ায় হাঁটছি।
সকালের এই মায়াময় বাতাস মনের মধ্যে অন্যরকম অনুভূতি তৈরি করে। কিন্তু আমি সেটা বুঝতে পারছি না।
হঠাৎ বুঝলাম পিচ্চিটা এখন আমার সাথে আছে কিনা। দুজনে একসাথে হাতে হাত রেখে হাঁটতাম।
এটা কত সুন্দর হবে. ভাবতেই মনটা খুশিতে নেচে উঠল।
তারপর মন স্থির করলাম। আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
বিয়ের পর রোজ সকালে ওকে খোলা হাওয়ায় বেড়াতে নিয়ে যাবো।

এসব ভাবতে ভাবতে হাঁটতে হাঁটতে মনে হলো জেনো আমাকে পিছন থেকে সালাম দিল
- আসসালামলাইকুম (____)
আমি পিছনে ফিরে তাকালাম. খুব অবাক হইনি।
কারণ এটাই ছিল শুরু। কালো বোরকা। আছে মানানসই মোজা।
দেখতে বেশ সুন্দর।
আমি তার সালামের জবাব দিলাম।
এবং আমি জিজ্ঞাসা
- আরে এত সকালে কোথায় যাচ্ছিস? (আমি)
-দুলাভাই প্রাইভেট পড়তে যাচ্ছে। (পরিচয়)
- আচ্ছা, সে কখন স্কুলে যাবে (আমি)?
- 8:30 স্কুলের ক্লাস শুরু। এতদিন স্যারের কোচিং করছিলাম। (পরিচয়)
- ঠিক আছে, সাবধানে থেকো (আমি)।
- আচ্ছা, যদি কিছু মনে না করেন, একটি শব্দ সাহায্য করবে (পরিচয়)।
- আমাকে বলুন আপনি কি মনে করেন আমি সাহায্য করতে পারি (আমি)
-আসুন আমাকে একটু এগিয়ে স্যারের বাসায় নিয়ে যান। আসলে, সেখানে কিছু ছেলে প্রতিদিন সকালে আমাকে বিরক্ত করে।
- কি বড় সাহস? ঠিক আছে দেখি কে তোমাকে বিরক্ত করে (আমাকে)
তারপর কিছু না বলে হাঁটতে লাগলো।
আমি তার সাথে হাঁটছিলাম।
কিছুক্ষণ পর আমরা দুজন থমকে দাঁড়ালাম। পাশেই স্যারের বাড়ি।
আর রাস্তার ওপারে কিছু পোলাপাইন দাঁড়িয়ে ছিল। 9-10 এর ছাত্রদের দেখা যায়।

শুরুটা আমাকে বলেছিল-
- দুলাভাই, ওই ছেলেগুলো প্রতিদিন আমার সাথে কড়া কথা বলে (পরিচয়) (হাত দেখিয়ে)
- আচ্ছা, তুমি ভিতরে যাও, কিছু মনে করো। আমি তাদের দেখছি. আর আজ আমি তোমাকে স্কুলে নিয়ে আসব। (আমি)
- ঠিক আছে দুলাভাই (পরিচয়)

তারপর স্টার্ট ভিতরে চলে গেল।
আর আমি ছেলেদের সামনে গেলাম।
এই বয়সে একটা বাচ্চা ছেলে কি করবে। তাই বেশি কিছু বললাম না, ভালোভাবে বোঝাতে রাজি হয়ে গেলাম।

তখন রাত ৮টা। শুরুটা বেরিয়ে এল।
তারপর আমাকে জিজ্ঞেস করলেন
- কি ব্যাপার দুলাভাই? (পরিচয়)
আমি ভাবলাম: আমি সুচনার উপর একটু রাগ করেছি..
তাই ইচ্ছা করেই বললাম।
- তারা বলেছে তুমি তাদের একজনকে (আমাকে) ভালোবাসো।
- কি দারুণ সাহস। আমার নামে মিথ্যা বলা। আমি কি আজ তাদের শেখাবো? (পরিচয়)
এই বলে সূচনা ওদের দিকে হাঁটা শুরু করলো।
আর পরিস্থিতি হাতের বাইরে যাওয়ার আগেই আমি তার পথ আটকে গেলাম।
আমি দাঁড়িয়ে হাসছি দেখে সুচনা আমাকে ব্রাশ করতে বলল
- কেমন আছেন দুলাভাই? হ্যাঁ, ওরা তোমার ফুফুর নামে অপবাদ দিয়েছে আর তুমি হাসছো। (পরিচয়)
- হেহেহে, আরে, তারা কিছু বলেনি। আমি শুধু তোমার সাথে রসিকতা করেছি।
- যদি পারো তাহলে দাঁড়াও, আজ আমি বাড়ি যাব এবং সবার আগে তোমার নামে আমার বোনকে বিচার দেব (পরিচয়)।
- আহ - কি বলছিস.. আমি একটু বকা দিলাম। তোমার বোনকে এখানে (আমাকে) টানতে হবে কেন?
- আজেবাজে কথা বলার আগে ভাবিনি। (পরিচয়)
- আচ্ছা, দুঃখিত, এটা করার পরে, আপনি অনুমতি নিয়ে বাড়াবাড়ি করবেন না, তবে আপনার বোনকে (আমাকে) বলার দরকার নেই।
- আমি আপনাকে এক শর্তে বলব না (পরিচয়)
- কি বলেন? (আমি)
- 1000 টাকা দাও তাহলে বলবো না (পরিচয়)
- তুমি (আমাকে) এত টাকা দেবে।
-তুমি যা চাও তাই করব।
- নইলে আরো বলবো। নাম () (পরিচয়)
- এভাবে (আমার) টাকা নেওয়া কি ঠিক হবে?
- দিতে হবে কিনা বলুন (পরিচয়)
- আমি খুব রাগী, কেন দুই বোন একই (আমি)
কিছুই করার নেই. অবশেষে সকালে মানিব্যাগ থেকে এক হাজার টাকা খরচ হলো।
টাকা হস্তান্তরের সঙ্গে সঙ্গে তিনি ড
- এখন আমাকে স্কুলে নিয়ে আসি (পরিচয়)
- হুম, চলুন।
তারপর দুজনে হাঁটা শুরু করলো।
কথা বলতে বলতে হাঁটছিলাম। কখন যে স্কুলের সামনে পৌঁছেছি জানি না।

পরিচয়টা আমাকে বলল
-আচ্ছা দুলাভাই আপনি সকালে নাস্তা করেছেন (পরিচয়)
- না, আমি এখনও এটি করিনি, তবে আমি বাড়িতে গিয়ে এটি করব (আমি)।

তারপর ব্যাগের চেইন খুলে একটা বাক্স বের করল
ও আমার হাত ধরে বলল
-এই নাও আর তোমার নাস্তাটা এখানে করে দাও। অপু খাবে। (পরিচয়)
- আচ্ছা (আমি)।
এরপর শুরু হয় স্কুলের ভেতরে।
আর বাক্সটা হাতে নিয়ে হাসিমুখে বাসায় চলে গেলাম।

তারপর টেবিলে বসে আমার ভাবী স্ত্রীর পাঠানো নাস্তাটা নিয়ে নিলাম।
আমি বিছানায় হেলান দিয়ে শুয়ে পড়লাম। কাল আমার বিয়ে। কী অনুভূতি. এই সব ভাবতে ভাবতে একটু বিব্রত হচ্ছিল।

তারপর মায়ের সাথে ফোনে কথা বলি।
আগামীকাল সকাল ১০টার দিকে কাজী অফিসে বিয়ে অনুষ্ঠিত হবে।
আর খাবারের ব্যবস্থা তাদের বাড়িতেই। কিছু ফকির গরীব ও এতিমদের খাওয়ানোর কথা বলছে।

সাবাশ. গরিবদের খাওয়ানোর মাধ্যমে যদি অন্তত কিছু ভালো কিছু অর্জন করা যায় তাহলে আমাদের পারিবারিক জীবন অনেক সুন্দর ও সুখী হবে।
ইনশাআল্লাহ.

মোবাইলে ফেসবুক চালাতে চালাতে কখন যে ঘুমিয়ে পড়লাম বুঝতেই পারিনি।

হঠাৎ আমার ঘুম ভেঙ্গে গেল।
আমি বিছানা থেকে লাফিয়ে উঠলাম।
জীবনে প্রথম দুঃস্বপ্ন দেখলাম।
আমার মাথা ঘামতে লাগল।
তাড়াতাড়ি এক গ্লাস পানি খেয়ে নিলাম।

হঠাৎ আমি ঘুমিয়ে পড়লাম এবং একটি দুঃস্বপ্ন দেখে চমকে উঠলাম।

দুঃস্বপ্ন সোনিয়ার সাথে। মানে আমার ভাবী স্ত্রীর সাথে। হঠাৎ আমার স্বপ্ন সত্যি হল।

আমি কাছে গিয়ে তার হাত ধরলাম এবং তার কান্না পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেল।
সে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে।
আর আমি ওকে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে লাগলাম।

আমি জানি না কেন হঠাৎ সে এমন স্বপ্ন দেখল এবং তার হৃদয় কেঁপে উঠল।
চোখের কোণে টপটপ করে নোনা জল পড়তে শুরু করেছে।
কেন. আমি খুব ভয় পাচ্ছি।
কিন্তু সে কি আমাকে ছেড়ে চলে যাবে?
সত্যি, সারাজীবন ওকে পাবো না।

এসব ভাবতে ভাবতে বুকের মাঝখানে বাম পাশে আমার হৃদয়ে একটা ব্যাথা অনুভব করলাম।
এখন তার কথা ভাবতেই ভয় লাগে। স্বপ্ন যদি সত্যি হয়। তাই আমি কি করতে পারি?
এই দুই দিনে আমি তার প্রেমে পড়ে গেছি।

এখন তাকে না পেলে সে হারিয়ে যাবে।
আমি আর কিছু ভাবতে পারিনি যেন সবকিছু এলোমেলো হয়ে যাচ্ছে।

মায়ের সাথে ফোনে কথা বলেছি। আমি তার সম্পর্কে জানতে পেরেছি।
সব ঠিক আছে, চিন্তা করার দরকার নেই।
মাকে স্বপ্নের কথা বললাম। মা হাসলেন।
স্বপ্ন কখনো পূরণ হয় না.!
কিন্তু মনে মনে ভয় পেলাম। মায়ের সাথে কথা বলার পর ভয় কেটে গেল।

দেখতে দেখতে সময় কেটে গেল। দুই পাশে দুইজন। কিন্তু বাতিক জগতে তা একঘেয়ে হয়ে গেছে। কিন্তু এটা কি ভালোবাসার লক্ষণ?
শুনেছি.. প্রেমে পড়লে নাকি সব রঙ হয়ে যায়। রাতের আকাশে নক্ষত্রের মেলা দেখে মনে হয় সে হয়তো সেই প্রান্তে বসে আমার ভাবনায় ডুবে আছে..
ভাবতে ভাবতে সকাল হয়ে গেল। আমি ছেলে আর আমাকে এমন বর বানাতে হবে না। আমি যেভাবে অফিসে গিয়েছিলাম ঠিক সেভাবেই কাজী অফিসে গেলাম।
সবাই উপস্থিত।
শুধু কাজী সাহেবের কাজ শেষ করা বাকি।
এখন আমার ছোট বউ আমার পাশে বসে আছে।

আমি জানি না তার কেমন লাগছে। মুখ বাঙ্গি দেখে বোঝার উপায় নেই। তাতে বিব্রত হচ্ছে কিনা।
কারণ পর্দায় নিজেকে পুরোপুরি আড়াল করে রেখেছেন তিনি।

আমার শ্যালিকা পিছন থেকে আমাকে চিমটি মেরেছে
- দুলাভাই, তুমি আমার বোনকে কষ্ট দিলে বলেছিলাম তোমার খবর আছে (পরিচয়)

আসলে শালিতা একটু বেশি পরিণত। সব সময় মজা. তবে মনটা খুব ভালো। দুই বোনের মধ্যেও একই আচরণ। বিদ্যমান।
শুধু শুরুটা একটু দুষ্টু মেয়ে।

আমি শুরুতে হাসতে পারলাম না।
তাই হাসিমুখে জবাব দিলাম।
- আমি এত খুশি হব যে প্রতিবেশীরা পুড়ে মরবে (আমি)

তারপর আর কথা নেই। আমি তার দিকে কয়েকবার তাকালাম।
কিন্তু আমার মনে হয় না সে আমার দিকে একবারও তাকাল। মূর্তির মত চুপচাপ বসে আছে।

অবশেষে কাজী সাহেব বিয়ে পড়ালেন
শুরু হলো নতুন জীবন। আমার একাকী জীবনে এখন যোগ হয়েছে নতুন জীবন।
মায়ের কাছে গিয়ে দুজনকেই সালাম দিলাম।
তারপর শাশুড়িকে সালাম দিলাম।
শুরুর পাশে দাঁড়িয়ে..
তাকে দাঁড়িয়ে হাসতে দেখে আমি তাকে জিজ্ঞেস করলাম সে হাসছে কেন?

হেসে বলল সুচনা
- আজ আমি যদি বড় হতাম, তাহলে তুমি এভাবে আমার পা ধরে সালাম করতে।
ভূমিকা শুনে সবাই হেসে উঠল।

কিন্তু শুরুর দিকে ছোটটা কেমন? যেন এদিক ওদিক তাকাচ্ছে। যেন তার মুখে হাসি ছিল না।

আমি ফিসফিস করে সুচনাকে জিজ্ঞেস করলাম।
- তোমার বোনের (আমার) মেজাজ খারাপ কেন?
- আপনার উপর রাগ হতে পারে (শুরু)
- হে ভগবান ..! তুমি রাগ কেন (আমি)
- আমি জানি না, আপনি কি জিজ্ঞাসা করছেন. (পরিচয়)
- আচ্ছা - কিন্তু আমি কিভাবে তার রাগ ভাঙ্গতে পারি (আমি)।
- কালো-মুকুটযুক্ত ফুলের গুচ্ছ হস্তান্তর করতে খুব বেশি লাগে না। আর কিছু করতে হবে না.! অপুর কৃষ্ণচূড়া ফুল সবচেয়ে বেশি পছন্দ করে। (পরিচয়)
- এটি করা শালীন জিনিস, এবং এটি সেখানেই শেষ হওয়া উচিত।
- হুমম (পরিচয়)

তারপর আমরা সবাই একসাথে বাসায় গেলাম।
কিছু দরিদ্র মানুষের জন্য খাবার আছে এবং কিছু আত্মীয় রাও আছে।

আমি নিজেও কিছু গরীব মানুষকে খাওয়াই। আমি সার্ফ.
সবাই খাওয়া শেষ করতে করতে বিকেল হয়ে এসেছে।

আমরা বিদায় জানালাম। সোনুর বাড়ি থেকে।
শুরু হলে অনেক কান্নাকাটি হয়েছিল। ছোট টাও অনেক কেঁদেছে।
কাদলে তাকে মোটেও ভালো লাগছে না।
এখন গাড়িতে বসে আছি।
ছোটটা আমার পিছনে বসে আছে আর মা সামনে।
ছোট্টটি এখনো কাঁদছে।
চোখের জলে মুখটা কেমন মলিন হয়ে গেছে।
তাই আমি তাকে সান্ত্বনা দিতে বললাম
- এত কাঁদতে হবে না। তুমি যখন বাসায় আসতে চাও, তুমি বলো আমি নিয়ে আসব। এখন কান্না থামাও। (আমি)
তারপর আমি নিজেই ওর চোখের জল মুছে দিলাম। এখনো কাঁদছে।
চোখের জল যেন শেষ হয় না।
আমি আর মাকে কাঁদতে দেখে বললাম
- আরে মা তুমি এত কাঁদছ কেন? আপনি আমার শাশুড়ি হয়ে ওই বাড়িতে যাচ্ছেন না, আপনি আমার বোনের মেয়ে, তাই আপনি আমার মেয়ে হয়ে আপনার নিজের বাড়িতে যাচ্ছেন। তুমি যখন চাইবে আমি তোমার বাবা-মাকে দেখতে আসতে পারি। আলো তোমাকে নিয়ে আসবে...! আলো আনিস না কেন..? (মা)

(মা আমাকে একটি প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন)
- হ্যাঁ, আমি নিয়ে আসব। (আমি)।
তারপর অনেক কান্না থামিয়ে দিলাম।
যাইহোক, এত সময় পরে, বাবা-মায়ের ছেড়ে যাওয়া কঠিন হবে।
তাই আর কিছু বললাম না। কিন্তু আমি বুঝতে পারি সে নীরবে কাঁদছে।

আমি আমার হাত বাড়িয়ে তার চোখের জল মুছে দিলাম।
চোখ দুটো কেমন লাল হয়ে গেছে।
তার চোখের জল মুছে দেয়। সে আমার দিকে মায়াবী দৃষ্টিতে তাকাল।
ওর দিকে চোখ রাখতেই ওর চোখে পড়ে গেলাম।

আমিও এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছি।
আর কোন কথা না বলে আমার ডান হাতটা ধরে আমার কাঁধে মাথা রেখে বসে পড়ল।

আমি একটু অবাক হলাম। হঠাৎ সে আমার হাত ধরল।
এবং তার এখনও একটু বিশ্রাম প্রয়োজন।
তাই কিছু বললাম না।
সে আমার কাঁধে মাথা রেখে চোখ বন্ধ করে আমার হাত ধরে বসে আছে।
আমি ঘুমাতে যাইনি। হয়তো চোখ বন্ধ করে কিছু ভাবছিলেন।

আমি যদি বুঝতে পারতাম সে কি ভাবছে। তখন হয়তো তার মনের কষ্ট বুঝতে পারতাম।

রাত প্রায় ৯টা বাজে আর আমরাও দেখতে দেখতে বাসায় পৌছালাম।
বাড়িটা আগেই সাজানো ছিল।

আগেই গাড়ি থেকে নামলাম। তারপর মায়ের হাত ধরে প্রথমে নামিয়ে দিলাম।

মা আমাকে নামতে বললেন
- যিনি বাবা এবং মাকে কোলে নিয়ে তাদের বাড়িতে নিয়ে যান (মা)
মায়ের কথা শোনার সাথে সাথে আমি অবাক হয়ে ওর দিকে তাকিয়ে বললাম।
- কোলে নিলে কেন..? (আমি)
- এটা আমাদের বাড়ির নিয়ম। নতুন বউকে কোলে করে ঘরে নিতে হয়। তাই যা বলি তাই কর। (মা)

আর কি করতে হবে? অবশ্যই করো.
তাই ঘুরে ঘুরে দরজা খুলে দিলাম ওপাশের।
- নমুন (আমি)
সোনিয়া আর কিছু না বলে নিঃশব্দে নেমে গেল।
আর সাথে সাথে কোলে তুলে নিলাম।
- সে একটু লজ্জা পেল।
আর চোখ বন্ধ করল।
তারপর ওকে রুমের ভিতরে নিয়ে আমার রুমে বসিয়ে দিয়ে চলে গেলাম।

গাড়ি থেকে কিছু জিনিসপত্র ড্রাইভারের সঙ্গে গেল। যেটা তার জন্য উপহার হিসেবে নিয়ে এসেছি।

তারপর সোফায় বসলাম। এমন সময় মা এসে বললেন।
- কিরি এখানে যে ঘরে শাশুড়ি একা বসে আছে। (মা)
- আচ্ছা মা! (আমি)
- তারপর মা আর কিছু না বলে হেসে চলে গেল। তার কক্ষে
আর কিছুক্ষণ এভাবেই বসে রইলাম। এবং চিন্তা.
ড্রাইভার আসে না কেন? ফুল আনতে কি হাওয়া হয়ে গেল?
আমি জানি না সে পায় কিনা। সে যদি না পায় তাহলে আমিই শেষ।
যাই হোক। রাত প্রায় ১১টা বাজে। তখন ঢাকা শহরে দোকানপাট খোলা থাকে।
তাহলে এত দেরি কেন বুঝলাম না।

কিছুক্ষণ পর ড্রাইভার তাড়াতাড়ি ভেতরে ঢুকে বলল
- স্যার, এই ফুলটি নিন। অনেক খোঁজাখুঁজির পর পেলাম।

ফুলগুলো দেখে খুশি হয়ে হাতে নিলাম।
তারপর পকেট থেকে মানিব্যাগটা বের করে ড্রাইভারকে 1500 টাকা পুরস্কার দিলাম।

ড্রাইভার খুশি মনে চলে গেল।

তাহলে আর দেরি হবে না।
ফুল আর উপহারের বাক্সটা হাতে নিয়ে ঘরের দিকে হাঁটা শুরু করলো।
বুকের ভিতর ধুকফুক।
রুমের দরজার সামনে এসে থামলাম।
আমি একটা দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে আস্তে আস্তে ঘরে ঢুকলাম।
রুমে ডুকতেই। সোনিয়া আমাকে দেখে বিছানা থেকে উঠে আমার সামনে এলো।
তারপর পা ছুঁয়ে সালাম দিতে লাগলাম

আমি একটু পিছিয়ে গিয়ে বললাম
- আরে, আরে, তুমি (আমি) কি করছ?
- সালাম দিলাম কেন? এটা সব স্ত্রীর কর্তব্য।
তার স্বামীকে সালাম করুন। (সোনিয়া)
- ঠিক আছে, ঠিক আছে, তবে তোমার জায়গা আমার পায়ের উপর নয়, আমার বুকে। (আমি)
- তাই..! আচ্ছা, তোমার একটা হাত আছে। পেছনে ফেলে গেলেন কেন?
আর এই হাতে এই বাক্সটা কি। (সোনিয়া)
- এই নাও, ধরো (আমাকে)।
আমি তাকে বক্সটা দিলাম।
সে ব্রুককে একটু উত্তর দিল
- তাতে কি (সোনিয়া)?
- একবার দেখুন (আমি)

এরপর সোনিয়া বাক্স খুলতে থাকে।
বাক্সটা খুলতেই সে অবাক হয়ে আমার দিকে তাকাল।
কারণ এটি একটি বাক্সে রাখা ছিল।
আমার প্রিয় রঙের বোরকার দুই সেট
একটি কুরআন শরীফ। তাবজি। আরও প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র। এবং কিছু অর্থ ছিল।

আমি ওর দিকে তাকিয়ে বললাম।
--যেমন..? (আমি)
সে কথা বলছে না। সে চুপচাপ বাক্সে রাখা জিনিসগুলোর দিকে তাকিয়ে আছে।
তাই আবার জিজ্ঞেস করলাম
- কি হয়েছে আপনি এমন কিছু বলেননি যা আপনার পছন্দ হয়নি। (আমি)
আমার দিকে তাকানোর সাথে সাথেই সে আমার বুকে চেপে ধরল।
সে আবার কাঁদছে। আমি স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছি তার চোখের জল।
আমি একটু ঘাবড়ে গেলাম।
এবং আমি ব্রুকসকে তার একটু কাছে জিজ্ঞাসা করলাম।
- তুমি কেন কাঁদছ? যা হয়েছে তা পছন্দ হয়নি। (আমি)
সে কান্নাজড়িত কণ্ঠে জবাব দিল।
- তুমি কি বোকা? আমি এটি খুব পছন্দ করি. এবং এগুলি আমার কাছে সবচেয়ে মূল্যবান উপহারগুলির মধ্যে একটি। (সোনিয়া)
(ক্রন্দিত)
-তাহলে কাঁদছ কেন..? (আমি)
- তুমি একটা বোকা. তুমি বুঝবে না। এটা একটা খুশির কান্না। (সোনিয়া)
সে আমাকে জড়িয়ে ধরল।
- হু, আমি মোটেও বোকা নই।
- না, তুমি বোকা নও, তুমি একটা বোকা। (সোনিয়া)
- কি ..? আমি দুঃখিত ..! তুমিও (আমি)

সোনিয়া আমার মুখে আঙ্গুল দিয়ে বলল
- চুপ কর ..? আপনি না বলুন. (সোনিয়া)
- আমি তোমাকে একা বলবো না, তুমি আমাকে বলবে (আমি)
- আমরা হব ...! কিন্তু তারপরও পিঠে হাত রাখো কেন? দেখা যাক কি নিয়ে আসে..! (সোনিয়া)

আমি পেছন থেকে ফুলের তোড়া এনে বললাম।
- আমি এটা তোমার (আমার) জন্য এনেছি।
- এটা কি তুমি? জানলে কেমন লাগে এই কৃষ্ণচূড়া ফুল। (সোনিয়া)
--তোমার বোন বলল। (আমি)
- ওহ, আমি এগুলো রাখব। আর তুমি গিয়ে ওযু কর (সোনিয়া)
- ঠিক আছে আমি যাচ্ছি।
- তারপর ওয়াশ রুমে গিয়ে আয়ু সারলাম। আমি বেরিয়ে এলাম। আমি দেখেছিলাম. দোয়া নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন সোনিয়া জয়।
আমি তার সামনে দাঁড়ালাম তখন তিনি আমাকে জায়নামাজ বললেন।
- আমাদের পারিবারিক জীবনকে সুখী করার জন্য আমরা আজ হাত তুলে মহান আল্লাহর কাছে ফরিয়াদ করব।
তিনি আমাদের খালি হাতে ফিরিয়ে দেবেন না। (সোনিয়া)
- আচ্ছা (আমি)।

অতঃপর আমরা দু’জন একসাথে নামাজ পড়লাম।
নামাজের পর বললেন।
- শোন, আমি তোমার উপর খুব রাগ করেছি। তুমি আমার সাথে কথা বলবে না।
-ওমা তুমি আবার রাগ করলেও কেন..?
- এটার মত ..! আমি খুব রাগী (সোনিয়া)
- ফুল এনেছি। আমাকে আর কি দিতে হবে (আমি)
- তোমার কি মনে হয় আমি লোভী? যে কোন কিছুতেই আমার রাগ ভেঙ্গে যাবে। (সোনিয়া)
- হ্যা, তা ঠিক.
- মানে কি.. (সোনিয়া)
- কিছু না। (আমি)
- চুপ কর, আমি তোমার (সোনিয়া) সাথে কথা বলিনি।
- কেন। ! কি করব বলুন (আমি)
-তাহলে তুমি আমার অনুমতি নিয়েছিলে আমাকে তোমার কোলে করে নিয়ে আসতে। (সোনিয়া)
- না, তবে মা আমাকে কোলে নিয়ে আসতে বলেছে। (আমি)
- আমি বুঝেছি
-আচ্ছা এখন তোমার জন্য কি করবো বলো (আমি)
-যা বলি তাই কর..! (সোনিয়া)
- হ্যাঁ বল (আমি)

- ছোটবেলা থেকেই তোমায় স্বামী হিসেবে পাওয়ার জন্য ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করে আসছি। আজ আমার স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। তবে আমার আরও একটি স্বপ্ন আছে। যা তুমি পূরণ করবে (সোনিয়া)
- আমি কি শুনি?
- তুমি কি এটা পূরণ করবে (সোনিয়া)
- হ্যাঁ, কেন নয়? আমার স্ত্রী আমার কাছে একটি ইচ্ছা করবে এবং আমি যদি তা পূরণ করতে না পারি। তাহলে আমি কেমন স্বামী?
আপনি যা চান বলুন ইনশাআল্লাহ আমি (আমাকে) পূরণ করব।
- না, আমি (সোনিয়া) বলতে লজ্জা পাচ্ছি।
- ওমা পিচ্চিটা আবার বিব্রত হয় বুজি (আমি)
- আমি একটি ছোট.
- তুমি যত বড়ই হও না কেন। এমনকি তুমি আমার (আমার) চেয়েও বড়
- কে (সোনিয়া)
- কি রে...! আপনি আমাকে কি করতে চান আমাকে বলুন
- কাছে এসো, কান দিয়ে বলবো (সোনিয়া)
- কান দিয়ে বলার কি আছে (আমি)
- আমি তোমাকে আসতে বলিনি (সোনিয়া)
- আচ্ছা আসছি (আমি)।
তারপর আমি তার কাছে গেলাম - সে আমাকে জড়িয়ে ধরল।
আমার বুকে মুখ লুকিয়ে আছে।
আমি একটু অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলাম।
- আরে: কেউ আমাকে পাগলের মতো জড়িয়ে ধরে (আমি)
- আমি ধরে রাখি.. কারণ আপনি আমার স্বামী তাই আমি যা খুশি তাই করতে পারি (সোনিয়া)
- হুম, তুমি তা করতে পারো, কিন্তু তুমি যা চাও তা না বললে (আমি)
- না মানে..... আসলে (সোনিয়া)।
- আমাকে (আমাকে) বলুন।
- আমার না... (সোনিয়া)
- আমাকে (আমাকে) বলুন।
- আমি তোমার কাছে বাবু চাই না (সোনিয়া)

আমার বুকে মুখ লুকালো।
যেন বুকের ভিতর ঢুকতে চাইছে ডিউক।
ওর কথাগুলো শোনার সাথে সাথে আমি মুচকি হেসে ওকে জড়িয়ে ধরলাম
- ইশ, আমার বউ আমার কাছে বাচ্চা চায়। আর আমি এটা ছাড়া বাঁচতে পারি না
কিন্তু তার জন্য তুমি কষ্ট পাবে (আমাকে)

- কি আফসোস..! (সোনিয়া)
- আমাকে আরো ভালোবাসতে হবে। (আমি)
- আমাকে আবার জড়িয়ে ধরো না, পিলজ (সোনিয়া)।
- আমি কেন).
- আমি তোমার বুকে মাথা রেখে ঘুমাতে চাই তাই (সোনিয়া)

-তাহলে বুঝুন...
তারপর ওকে তুলে নিলাম। ও আমার বুকে মাথা রেখে চুপ করে আছে।

আমি বিছানায় গিয়েছিলাম. আমাকে জড়িয়ে ধরে বলল
- এই আমাকে ইয়ে দেবে (সোনিয়া)।
- ইয়ে কি গো (আমি)
- তুমি জানো না (সোনিয়া)
- কোথাও নেই (আমি)
-ঠিক আছে তাহলে থাক (সোনিয়া)
এই বলে সে আমার বুকে মাথা রেখে চুপচাপ শুয়ে পড়ল।
আর ওর মাথায় হাত দিতে বললাম
- এই ছোট মেয়েটি কি রাগ করেছে (আমাকে)?
- কে (সোনিয়া)
- কি হু (আমি)
- একটু ঘুমাও (সোনিয়া)
- বাচ্চা কিভাবে ঘুমাবে (আমি)
- আমি জানি না কে (সোনিয়া)।
-আচ্ছা, আলো নিভিয়ে দেই। নইলে মানুষ মন্দ বলবে? (আমি)
- আমি ভয় পাচ্ছি (সোনিয়া)
- আমি (আমি)

তারপর লাইট নিভিয়ে দিলাম। আর দুজনের স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে তাদের ভালোবাসার সাগরে ভাসিয়ে দিলাম ________ সমাপ্ত  । 


বোরকাওয়ালি মিষ্টি  বউ (পর্ব -৪)
বোরকাওয়ালি মিষ্টি  বউ (পর্ব -৩)
বোরকাওয়ালি মিষ্টি  বউ (পর্ব -২)
বোরকাওয়ালি মিষ্টি  বউ (পর্ব -১)
© All Rights Reserved
Made with Forhad Elahe