MUKTOHASI

বোরকাওয়ালি মিষ্টি বউ (পর্ব -৩)



রাতে রুমে এমন আওয়াজ শুনে একটু ভয় পেতে লাগলাম।

কিছুই বুঝতে পারলো না।


সোনিয়ার বাসা থেকে কি একটা চিৎকারের শব্দ শোনা যাচ্ছে।

সাত পাঁচ না ভেবে ওর বাড়ির দিকে পা বাড়ালাম।

দরজা খোলা ছিল।

এমনকি ঘরের বাতিও জ্বলে উঠল।

আমাকে দরজার আলো সরিয়ে ঘরের ভিতরে উঁকি দিতে হয়েছিল

আমি দীর্ঘশ্বাস ফেলে উঠে দাঁড়ালাম।

নিজেকে বোকা বলা শুরু করলাম।

ঘরের ভিতরে দুই বোন একসাথে নামাজ পড়ছে।


বাহ, তাদের দুজনকেই খুব সুন্দর দেখাচ্ছে।

দুই বোন দেখতে স্বর্গীয় দেবদূতের মতো।


আমি তাদের দিকে তাকালাম এবং এতটাই অবাক হলাম যে কখন তাদের প্রার্থনা শেষ হল বুঝতেই পারলাম না।


পিচ্চিটা আমার সামনে এসে আমাকে হুমকি দিল

- হুমমম, তুমি আজ রাতে এখানে কি করছো?

আমি একটু ভ্রুকুটি করে জবাব দিলাম

- না মানে, আমি আসলেই পানির পিপাসা পেয়েছিল, তাই ঘর থেকে বের হয়ে ঘুন ঘুনের আওয়াজ শুনে তোর বাসা থেকে বের হয়েছি। কিন্তু যখন তোমাদের দুজনকে নামাজ পড়তে দেখি, আমি অবাক হয়ে যাই (আমি)।

- আশ্চর্যের কিছু নেই. তাহাজুতের নামাজ পড়ছিলাম। (সোনিয়া)

- এত রাত (আমি)

- রাতে তাহাজুত্তা নামাজ। (সোনিয়া)

- ওওও (আমি)


(যার ভাগ্য ভালো সে এমন বউ পাবে। আজ না কাল এমন মেয়ে পাওয়া খুব কঠিন। আজকাল মেয়েরা রাতে নামাজ না পড়ে ইউটিউবে ভিডিও দেখে। আর আমার ভাবী বউ তাদের থেকে একেবারেই আলাদা। ভাগ্য অনেক। ভাল)


হঠাৎ শুরুটা মাজ খানের কাছ থেকে।

- আপু দুলাভাই, দেখছি তোমার চোখ নষ্ট হয়ে গেছে। প্লিজ বলুন, ওদের বড় কুকুরের গল্প কি...........

- চুপ কর, তুমি সারাক্ষণ কথা বল।

এটা কোন ব্যাপার না আপনি কি মনে করেন. আমিঃ আমি জানি ওর মন কতটা খাঁটি (সোনিয়া)।


সে মন্ত্রমুগ্ধ চোখে আমার দিকে তাকাল। কথাটা শুনে ভালো লাগলো। অজান্তেই মুখের কোণে হাসি ফুটে উঠল।


আমি ওদের দুজনের দিকে তাকিয়ে ছিলাম।

হঠাৎ গলা ছেড়ে কাশি ছেড়ে স্টার্ট দিল।

আমি নিজেকে বলেছিলাম

- কাবাব মে হাদ্দি


তখন সোনিয়া আমাকে বলল

- শোন, একটা কথা বলবো আশা করি এই কথাটা রাখবে। (সোনিয়া)

- দয়া করে বলুন, আমি রাখব।

-আমাদের বিয়ের আর মাত্র দুই দিন বাকি তাই এই দুই দিন তোমাকে আমার থেকে দূরে থাকতে হবে। আমার সাথে কথা বলতে পারে না (সোনিয়া)


আমি একটু অবাক হয়ে তাকিয়ে বললাম

- আমি কেন).

- দেখো প্রথম যেদিন তোমাকে ধরেছিলাম। আমি সেদিন পাপ করেছিলাম।

কারণ বিয়ের আগে কোনো নারী পুরুষের সামনে নগ্ন হয়ে হাঁটলেও সে অপরাধী।

আর আমি তোমাকে শক্ত করে ধরে রাখার কথা বলছি।

আসলে সেদিন আমি আমার আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে পারিনি।

আমি যাকে ভালবাসি তাকে এতদিন ধরে রাখতে পারিনি।

কিন্তু সেদিন আবেগ চলে যাওয়ার পর বুঝলাম কাজটা করা ঠিক হয়নি।

তাই প্রতি রাতে নামাজের পর মহান আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করি।

আমি জানি না, ক্ষমা করবেন না। কিন্তু আমার এই সামান্য বিশ্বাস আছে যে তিনি পরম করুণাময় এবং ক্ষমাশীল। তিনি অবশ্যই আমাদের উভয়কে ক্ষমা করবেন।

তবে আমি যদি ইচ্ছাকৃতভাবে এবং ইচ্ছাকৃতভাবে প্রতিবার আপনার সাথে কথা বলি তবে তিনি আমাকে কখনই ক্ষমা করবেন না।


যাতে আমাদের উভয়ের আমলের মধ্যে কোনো গুনাহের কাজ না হয়। তাই এই দুই দিন আমাদের একে অপরের থেকে আলাদা হতে হবে। কোন কিছু থেকে দূরে থাকুন

আমি তোমার সামনে যেতে পারব না।

তার মানে এই নয় যে আমি তোমাকে ভালোবাসি না। আমার মনের মধ্যে তোমার কতটা জায়গা আছে তা বলতে পারব না।

কিন্তু তার চেয়েও বেশি আল্লাহর ভয় আছে। তাই আমাদের দুজনের ভালোর জন্যই। আর মাত্র দুই রাত তোমাকে আমার চোখের আড়ালে থাকতে হবে। আমার ইচ্ছা পূরণ করুন. (সোনিয়া)


কথাগুলো বলে সোনিয়া চুপ করে রইল। সে মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে ছিল।

আর মনে মনে ধন্য বোধ করলাম।

সত্যিই এসবের দিকে তাকিয়ে বাস্তব নাকি কল্পনা।


একটা মেয়ে কতটা ভালোবাসতে পারে তার ভবিষ্যৎ সামির জন্য ঈশ্বরের কাছে ক্ষমা চাইতে।

একটা মেয়ে কতটা ভালোবাসায় এত রাত নামাজ পড়ে তার ভবিষ্যৎ সামির জন্য আল্লাহর দরবারে হাত তুলতে পারে।


হয়তো তার ভালোবাসার বিশালতা আমার চেয়েও বেশি।

আমি কিছু বললাম না, মাথা নিচু করে হাসলাম।

- তুমি যা বলবে তাই করব (আমি)।

আমি তাকে চলে যেতে বললে সে আবার ফোন দিল

- শোন (সোনিয়া)

- আমি ঘুরলাম কিন্তু তার দিকে তাকালাম না।

মা বিনীতভাবে বললেন।

- হ্যাঁ বল (আমি)

-আর একটা জিনিস রাখতে হবে। (সোনিয়া)

- হ্যাঁ বলবেন না (আমি)।

- আমাদের বিয়ে ঘরোয়া হলে আমি খুব খুশি হতাম। না, কোনো ঘটনা বা শরীর হলুদ করার দরকার নেই। কারণ বিয়েতে হলুদ হারাম। এবং প্রোগ্রামটি না করাই ভাল কারণ সেখানে প্রচুর লোক থাকবে।

আমি বউ হয়ে তোমার পাশে বসে থাকব। হাজারো মানুষ আমার মুখের সৌন্দর্য উপভোগ করবে। ছবি তোলা হবে এবং ভিডিও করা হবে।

এসবের জন্য আমি আরও পাপের শরীক হব।

আমার রূপের সৌন্দর্য শুধু আমার স্বামীর জন্য। আমি চাই না তাকে ছাড়া কেউ আমাকে দেখুক। মোটেও না ঘোড়ার চেয়ে একটি দরিদ্র ঘোড়া ভাল। কারণ এই জীবনে তোমাকে না পেলেও আমার কোনো ক্ষতি হবে না, তবে যে গুনাহ হবে তার মাফের জন্য পরকালে অনন্ত জীবনের শাস্তি ভোগ করতে হবে।

তাই আপনাদের কাছে আমার এই অনুরোধ। আমি আশা করি আপনি আমার সমস্ত কথা বুঝতে পেরেছেন। (সোনিয়া)


কথাটা শোনা মাত্রই চোখের কোণে এক ফোঁটা নোনা জল জমতে লাগল।

এটা সমস্যা না. এটা একটা খুশির কান্না। .এখন আমি বিশ্বের সবচেয়ে সুখী মানুষ মনে হয়.


আমি শুধু মাথা নত করলাম

- আপনি যেমন চান ঠিক তেমনই টাই হবে। (আমি)

তারপর বাসা থেকে বেরিয়ে এলাম।

এখন খুব খুশি লাগছে।

দুজনের কথা স্পষ্ট শুনতে পেয়ে চোখের জল মুছতে মুছতে তার বাড়ির দরজার সামনে দাঁড়িয়ে আছি।

.--অপু, তুমি সত্যিই অনেক ভাগ্যবান। যে সে তোমাকে অনেক ভালোবাসে (পরিচয়)

- সে আমাকে যতটা ভালোবাসে তার থেকেও বেশি ভালোবাসি, কিন্তু বিয়ের আগে নয়। আমি কখনই তাকে আমার ভালবাসা জানতে দেইনি।

এখন তার একটু কষ্ট হতে পারে, তবে আমাদের দুজনের জন্যই ভালো। (সোনিয়া)

- কি ব্যাপার, সে খুশি।

- হুম তাই (সোনিয়া)

-যেটা আবার স্কুলে না সকালে ঘুমিয়ে পরে এখন। (সোনিয়া)।

- হ্যাঁ.. আমি আর স্কুলে যেতে পছন্দ করি না (পরিচয়)

- কেন (সোনিয়া)

-তোমাদের দুজনের প্রেম দেখে আমিও বিয়ে করতে চাই (পরিচয়)

- চুপ থাকতে তোমার বয়স হয়েছে। আমি তোমাকে চড় মারবো। আমি কাল আমার বাবার বিচার দিচ্ছি। (সোনিয়া)

- না, না, আপু, আমি মজা করেছিলাম।

কেন আপনি এটা সিরিয়াসলি নিচ্ছেন হিহিহি (পরিচয়)

- হু কেয়ারস, চলো একটু ঘুমাই আর সকালে আবার উঠি। (সোনিয়া)



তখন তারা কথা বলা বন্ধ করে দেয়।

আর আমি আর নীলমা মনে মনে সিদ্ধান্ত নিলাম।

আমি তাকে কখনই কষ্ট দেব না।

তাহলে হয়তো আল্লাহ আমাকে ক্ষমা করবেন।


দুজনেই পাগল।

আমি হাসতে হাসতে আমার রুমে চলে গেলাম।


সব পানির পিপাসা মিটেছে। এখন শুধু ভাবছি। কবে পাব সেই ছোট্টটিকে আমার বুকে?

এখন এই দুটি দিন আমার কাছে দুই বছরের মতো মনে হচ্ছে।

আমি এখন তার সাথে কথা বলা ছাড়া সাহায্য করতে পারি না। সারারাত ওর হাত ধরে বসে গল্প করতে চাই।

কিন্তু কি আর করা পাগলের ইচ্ছা পূরণ করতে হবে। আমি রাজ কপালের সাথে জন্মেছি, তাই আমি তার মতো পাগল পেতে যাচ্ছি।


এখন আমার অনেক কাজ বাকি।

মাকে বিয়ের অনুষ্ঠানের কথা বলতে হবে। সকালে এখান থেকে চলে যেতে হবে। কারণ পাগলের সামনে থাকলে আমি কথা বলতে পারতাম না।

বিছানায় হেলান দিয়ে ভাবছিলাম আমার ভবিষ্যৎ জীবনসঙ্গীর কথা।

এখন হয়তো ঘুমাচ্ছে।

আমি সত্যিই তার ঘুমন্ত মুখ দেখতে চাই. জেগে উঠতে এত জাদু লাগে, যতবার আমি তার প্রেমে পড়ি।

আর রাগ করে লাভ নেই, গাল লাল টমেটোর মতো। এটা কেমন লাগছে বলে বোঝাতে পারব না। তারপর.


এসব ভাবতে ভাবতে কখন যে ঘুমের দেশে হারিয়ে গেলাম বুঝতেই পারিনি।


হঠাৎ মায়ের গলার আওয়াজ শুনে ঘুম ভেঙ্গে গেল, বুঝতেই পারিনি সকাল হয়ে গেছে।

মা বললেন

- আমি এমন ঘুমাচ্ছি যে আমি মরে যাচ্ছি বা এত ডাক শুনে উঠছি না। ভাবী শাশুড়ি বাসায় এসে এত ঘুমিয়েছে। লোকে কি বলবে (আম্মু)????


আমি উঠে বসে মায়ের হাত ধরে ওর পাশে বসে বললাম।

- মা, তোমার সাথে আমার কিছু কথা ছিল।

- হ্যাঁ, আমি সব জানি এবং আমাকে কিছু বলতে হবে না (আম্মু)????

- মানে, আপনি (আমাকে) কিভাবে জানেন????

- তোমার ভাবী বউ আমাকে সব বলেছে। আর আমি জানি বাবা তোমার চেয়ে ভালো কেউ বাঁচতে পারবে না। আপনি কখনই জানতে পারবেন না যে একটি মেয়ের প্রার্থনায় থাকা কতটা ভাগ্যবান (মা)


আর কিছু বললাম না। আমি চুপ করে রইলাম।

নিজেকে খুব খুশি লাগছে। আমি মনে করি আমার জীবন এখন পরিপূর্ণ।


-আচ্ছা শোন, তুমি শহরে গিয়ে তোমার জামাইয়ের জন্য কিছু গয়না কিনবে। (মা)

- আচ্ছা (আমি)।


তারপর আমার মা চলে গেল। আমি উঠে ফ্রেশ হলাম। মা বাসায় এসে নাস্তা করলো।

খাওয়া শেষ করে মা আর কাকা আর খালাকে বিদায় জানিয়ে চলে গেলাম। শহরে যাওয়ার ইচ্ছা ছিল।


দুই বোনের মধ্যে কাউকেই দেখলাম না। হয়তো পরিবারের সবাই রাজি। খুব ভাল কাজ করেছেন. এমন মেয়ে যদি প্রতিটি পরিবারেই থাকত।

তাহলে আজকের প্রতিটি পিতামাতা তাদের সন্তানদের জন্য গর্বিত হতে পারে।

এখন মনে মনে গাড়ি চালাচ্ছি। তবুও পিচ্চিটার কথা বারবার মনে পড়ে।

দুই দিন তাকে দেখতে না পাওয়াটা এখন আমার কাছে পাহাড়ের মতো মনে হচ্ছে। বুকের ভিতর হা হা কার উঠেছে।


হঠাৎ পকেটে থাকা ফোনটা বেজে উঠল।

মেসেজ আসছে কিন্তু কে দিয়েছে বুঝতে পারলাম না।

মা কোনদিন মেসেজ দেয় না। সরাসরি ফোন দেয়।

তাই চিন্তা না করে একটা সাইটে গাড়ি পার্ক করলাম।


তারপর পকেট থেকে ফোনটা বের করলাম। .

মেসেজটা দেখে আমার মনটা খুশিতে নাচতে লাগলো।


কারণ বার্তাটি ছিল পিচফর্ক।

লিখেছেন

- সাবধান হও. খুব দ্রুত গাড়ি চালাবেন না। ঠিক সময়ে খাবেন।

আজ থেকে তোর জন্য খাবো না। আমি তাকে বললাম কিছু খাবে না যতক্ষণ না বুঝতে পারি সে খেয়েছে কিনা। .

আর হ্যাঁ, রাস্তার মেয়েদের দিকে একদম তাকাবেন না। তাহলে তোকে আর বিয়ে করব না। কারণ আমি তোমার ভালোবাসা ভাগাভাগি করতে চাই না, শুধু আমার জন্য রাখো।

আল্লাহ হাফেজ নিজের খেয়াল রাখবেন।


বার্তার পর দুই চোখের কোণে জল জমে গেল। এত সুখ কপালে সেলাই হবে।

সত্যিই পাগল.

.


মেসেজের রিপ্লাই দিতে গিয়ে ভাবলাম.. রিপ্লাই দেওয়া কি ঠিক হবে?

আমি চিন্তিত হয়ে পড়লাম এবং তিনি আমাকে কিছু বলতে না বললেন।

আমার মাথায় একটা আইডিয়া এসেছিল যখন আমি ভাবছিলাম কি করা যায়। এর জন্য আমি তাকে কিছু উপহার দেব।

.কিন্তু ওটা বাসর রাত।

আমি গাড়ি স্টার্ট দিলাম।


আপনার গাড়িতে গাড়ি চলছে।

আর মনে মনে পিঠের জন্য উত্তেজনা বাড়ছে।

আমি এখনই তার কাছে ছুটে যেতে চাই ..


বোরকাওয়ালি মিষ্টি  বউ (পর্ব -৪)

© All Rights Reserved
Made with Forhad Elahe