ইউসুফ জুলেখার প্রেম কাহিনী | Yousuf Julekha Love Story Bangla

সমাজে বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলে ইউসুফ জুলেখার প্রেমকাহিনী নিয়ে অনেক গল্প প্রচলিত আছে। ইউসুফ জুলেখার গল্প নিয়ে অনেক গল্প, কবিতা, উপন্যাস, সিনেমা ও সিরিয়াল লেখা হয়েছে। ছোটবেলায় ইউসুফ জুলেখার গল্প শোনার মজা কী? আমি এটাও বিশ্বাস করতাম যে এটি তাদের প্রেমের গল্প গল্পের আড়ালে বলা হয়েছিল। তাদের প্রতি আমার মনে শ্রদ্ধা ও ভক্তি আসত |



হজরত ইউসুফ (আ.) কি সত্যিই জুলেখার প্রেমে পড়েছিলেন? নাকি যুগে যুগে নবীর নামে মিথ্যা অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। আল্লাহর অলী বা নবীদের সম্পর্কে কোনো গল্প যাচাই বাছাই না করে আমাদের মুসলমান হিসেবে বিশ্বাস করা উচিত নয়। আজ আমরা ইউসুফ জুলেখার গল্পের সত্যতা জানবো ইনশাআল্লাহ।

হজরত ইয়াকুব (আ.)-এর একাদশ সন্তান ছিলেন হজরত ইউসুফ (আ.)। ইউসুফ (আঃ) "কানান" নামক স্থানে জন্মগ্রহণ করেন, যা এখন ফিলিস্তিনের একটি অংশ। অঞ্চলটি পরবর্তীতে খলিল ও হেবরন নামে পরিচিতি পায়। জোসেফ তার জীবনের শুরুতে একজন ক্রীতদাস ছিলেন। বিভিন্ন সূত্র অনুসারে, তিনি একজন বন্দী ছিলেন এবং পরে মিশরে মন্ত্রী হন। ইউসুফ (আঃ) আল্লাহর দেওয়া বিশেষ জ্ঞানের মাধ্যমে স্বপ্নের সঠিক ব্যাখ্যা দিতে পারতেন। সেই সময়ে যারা মূর্তি পূজা করত তাদের মধ্যে ইউসুফ (আ.) সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের একেশ্বরবাদ প্রচার করেছিলেন। ইউসুফ আ. ছিলেন আসলে খুবই সুদর্শন।

হজরত ইয়াকুব (আ.) তাঁর পুত্র ইউসুফ (আ.)-কে খুব ভালোবাসতেন। এটা সহ্য করতে না পেরে ইউসুফের সৎ ভাইয়েরা তাকে খেলতে নিয়ে যাবে বলে তাকে গভীর গর্তে ফেলে দেয়। ইউসুফ তার বাবার কাছে গিয়ে তাকে বলল যে তাকে বাঘ খেয়ে ফেলেছে। সেই কূপ থেকে পানি তোলার সময় মালিক ইবনে দোবার নামে এক ব্যক্তি পানি ভর্তি একটি বালতি নিয়ে আসেন। ইউসুফকে দেখে মালেক খুব খুশি হলো। তাকে ক্রীতদাস হিসাবে বিক্রি করার জন্য বাজারে নিয়ে যান।

ইউসুফ আ. খুবই সুদর্শন এবং বাজারে তার দাম ধীরে ধীরে বাড়ছে। শেষ পর্যন্ত, মিশরের অর্থমন্ত্রী বিখ্যাত "আজিজ মিসর" ইউসুফ আ.-এর ওজনের সমান একটি সিল্কের কাপড়ের বিনিময়ে তাকে একটি দাসী কিনে দেন। অনেক ভাষ্যকারের মতে, এই আজিজের স্ত্রী জুলেখা বেগম, যার আসল নাম রঙ্গিল। . আজিজ এই জুলেখা সেবার তত্ত্বাবধানের জন্য একটি ছোট ছেলে ইউসুফ এ.কে.কে ক্রীতদাস হিসেবে কিনেছিলেন। ইউসুফ আঃ ধীরে ধীরে ছোট থেকে বড় হয়ে জুলেখার এই বাড়িতে একজন সুদর্শন যুবক হয়ে ওঠেন। জুলেখা হযরত ইউসুফ আঃ এর প্রতি আসক্ত হয়ে পড়েন। তিনি ইউসুফ আঃ কে তার সাথে অনৈতিক কাজ করতে বলেছিলেন। কিন্তু ইউসুফ (আঃ) আল্লাহর ভয়ে তার সমস্ত মন্দ প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন এবং জুলেখাকে এই নোংরা কাজ থেকে বিরত থাকতে বলেন। কে শোনে?

একদিন জুলেখা ইউসুফকে ঘরে একা পেয়ে ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ করে দেয়। জুলেখা মূর্তি পূজা করতেন। তিনি মূর্তির সামনে খারাপ কাজ করতে ইতস্তত করেন, তাই তিনি সেগুলোকে কাপড় দিয়ে ঢেকে দেন। তখন ইউসুফ তাকে তার সাথে সম্পর্ক রাখতে বলে। কিন্তু এবার ইউসুফ আ. বিদ্বেষের বশবর্তী হয়ে তা প্রত্যাখ্যান করেন। কিন্তু তিনি আজ নিরাপদে থাকবেন না বলে আশঙ্কা করেছিলেন। যাই হোক, আজ জুলেখা তার সাথে খারাপ কাজ করে চলে যাবে। তিনি ঈশ্বরের উপর নির্ভর করেছিলেন এবং তার সমস্ত শক্তি দিয়ে পালিয়েছিলেন। এসময় ইউসুফ যাতে পালাতে না পারে সেজন্য জুলেখা তাকে পেছন থেকে টেনে নিয়ে তার শার্টের কিছু অংশ পেছন থেকে ছিঁড়ে ফেলে।

বন্ধ দরজা তখন আল্লাহর অশেষ রহমতে খুলে গেল। দরজার বাইরে, ইউসুফ এ. এবং জুলেখা দুজনেই জুলেখার স্বামী আজিজকে দেখতে পান। জুলখা ইউসুফের নামে তার স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করে কঠোর শাস্তির দাবি জানায়। এরপর ইউসুফ আঃ কে কারাগারে পাঠানো হয়। কারাগারে থাকাকালীন ইউসুফ আজিজকে যা ঘটেছিল তার সত্য ঘটনা বলতে থাকেন। কিন্তু তারা কাউকে বিশ্বাস করে না। জুলেখার বক্তব্যকেই তারা চূড়ান্ত বলে মনে করেন। অতঃপর আল্লাহর রহমতে জুলেখার এক আত্মীয়ের কনিষ্ঠ কন্যা (যিনি এখনো স্পষ্ট করে কিছু বলেনি) দাবি করেন যে, ইউসুফের জামা সামনের দিকে রেখে দিলে ইউসুফ দোষী, আর যদি জামাটি পেছন থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়। তখন জুলেখা নিজেই দোষী। একটি ভুল করেছি.

জুলেখার স্বামী আজিজ তখন ইউসুফ আ.-এর শার্ট পেছন থেকে ছিঁড়ে যেতে দেখে আসল সত্যটা বুঝতে পারে। অতঃপর ইউসুফ আঃ কে মুক্তি দেন এবং জুলেখাকে বললেন শাস্তির ভয়ে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইতে। আসলে, ইউসুফ এতটাই সুদর্শন ছিল যে জুলেখার বাড়িতে আসা অন্যান্য মহিলারা ইউসুফকে দেখে ফল কাটার পরিবর্তে তাদের আঙ্গুল কেটে দেয়।

পরে ইউসুফের সাথে অনৈতিক কাজের জন্য জুলেখা বেগম সাহেবা তাকে আবারও হুমকি দেয়। কিন্তু ইউসুফ আঃ জুলেখা ও অন্যান্য মহিলাদেরকে অনৈতিক কাজ থেকে বাঁচানোর জন্য সর্বদা প্রত্যয়ী ছিলেন।

© All Rights Reserved
Made with Forhad Elahe